মুস্তাফিজ-এবাদতদের বিধ্বংসী বোলিংয়ে ১০৫ রানে জয়লাভ করে ইজ্জত বাচালো বাংলাদেশ

জিম্বাবুয়েকে তৃতীয় ওয়ানডে ম্যাচে এক প্রকার উড়িয়ে দিয়েছে বাংলাদেশের বোলাররা।‌ যেখানে প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে ৩০৩, দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে ২৯০ রান করেও ম্যাচ জিততে পারেনি বাংলাদেশ সেখানে আজ তৃতীয় ওয়ানডে ম্যাচে ২৫৬ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ।





জবাবে বোলিং করতে নেমে শুরু থেকেই জিম্বাবুয়েকে চেপে ধরে টাইগাররা। হাসান মাহমুদ, মেহেদী হাসান মিরাজ, এবাদত হোসেন, তাইজুল ইসলাম এবং শেষের দিকে মুস্তাফিজুর রহমানের বিধ্বংসী বোলিংয়ে ৮৩ রানে ৯ উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে।

তবে শেষ উইকেট জুটিতে রেকর্ড পার্টনারশিপ গড়ে তোলে জিম্বাবুয়ের দুই ব্যাটসম্যান। শেষ পর্যন্ত মুস্তাফিজের বলে ৩২.২ ওভারে ১৫০ রানের অলআউট হয় জিম্বাবুয়ে। ১০৫ রানে জয়লাভ করে বাংলাদেশ

ম্যাচের দ্বিতীয় ইনিংসে হাসান মাহমুদের করা বলে প্রথম ওভারে শূন্যরানে সাজঘরে ফেরেন ওপেনার কাইতানো। পরের ওভারে মারুমানিকে ফেরান মেহেদি হাসান মিরাজ। ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে টানা দুই বলে দুই ব্যাটারকে সাজঘরে পাঠান অভিষিক্ত বোলার ইবাদত হোসেন। আর পরের দুই উইকেট নেন তাইজুল ইসলাম। ফলে ৪৯ রানে ৬ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে দল।

প্রথম ছয়জন ব্যাটারের মধ্যে মাত্র দুইজন দুই অঙ্কের ঘর স্পর্শ করতে পেরেছেন। ইনোসেন্ট কায়ার ব্যাট থেকে এসেছে ১০ রান। আর ১৩ রানে আউট হন টনি মুয়োঙ্গা। ১ রানে মারুমানি, ১ রানে ম্যাধভের ও শূন্যরানে আউট হয়েছেন সিকান্দার রাজা। এছাড়া ১৫ রানে লুক জংউই, ২৪ রানে ক্লিভ মাদানদি, ২ রানে ব্রাড ইভান্স ও ২৬ রানে আউট হন ভিক্টর নিয়োচি। আর ৩৪ রানে অপরাজিত থাকেন রিচার্ড এনগারাভা।

বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ চারটি উইকেট নেন মোস্তাফিজুর রহমান। এছাড়া তাইজুল ও ইবাদত দুটি করে এবং হাসান মাহমুদ ও মেহেদি মিরাজ একটি করে উইকেট পেয়েছেন।

এর আগে ম্যাচের শুরুতে টস জিতে বাংলাদেশকে ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানান জিম্বাবুইয়ান দলনেতা সিকান্দার রাজা। ব্যাট হাতে শুরুটা ভালোই ছিল বাংলাদেশের। কিন্তু ভুল বোঝাবুঝিতে রান আউট হয়ে ফিরেছেন তামিম ইকবাল খান। আউট হওয়ার আগে করেন ১৯ রান। পরের ওভারে শূন্যরানে সাজঘরে ফেরেন নাজমুল হাসান শান্ত ও মুশফিকুর রহিম। তাতে চাপে পড়ে দল।

চতুর্থ উইকেটে বড় জুটিতে দলকে চাপমুক্ত করার দায়িত্ব নেন এনামুল হক বিজয় ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। এর মাঝে নিজের অর্ধশতক পূর্ণ করেন বিজয়। ব্যক্তিগত ইনিংসকে নিয়ে যাচ্ছিলেন শতকের পথে। কিন্তু ৭৬ রানে কটবিহাইন্ড হন তিনি। ৭১ বলে খেলা তার এই ইনিংসটি ছয়টি চার ও চারটি ছয়ে সাজানো।

এর কিছুক্ষণ পরেই আউট হয়ে ফিরে যান মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। আউট হওয়ার আগে ব্যাট হাতে তুলেছেন ৬৯ বলে ৩৯ রান। আর মেহেদি হাসান মিরাজের ব্যাট থেকে এসেছে ১৪ রান। এছাড়া তাইজুল করেন ৫ রান। আর রানের খাতা খুলতে পারেননি হাসান মাহমুদ ও মোস্তাফিজুর রহমান।





এদিকে পঞ্চম উইকেটে খেলতে নামা আফিফ হোসেন একাই খেলে যান শেষ পর্যন্ত। সেই সঙ্গে তুলে নেন ব্যক্তিগত অর্ধশতক। শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থাকেন ৮৫ রানে। মাত্র ৮১ বলে খেলা তার এই ইনিংসটি ছয়টি চার ও দুটি ছয়ে সাজানো। আর কোনো রান না করে অপরাজিত থাকেন ইবাদত হোসেন।