অনিশ্চয়তার মুখে বাংলাদেশে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ম্যাচের সরাসরি সম্প্রচার

আগামী ১৬ অক্টোবর থেকে অস্ট্রেলিয়ায় শুরু হবে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে সবচেয়ে বড় টুর্নামেন্ট আইসিসি টি২০ বিশ্বকাপ। টুর্নামেন্টের শুরু হতে আর এক মাসও বাকি নেই। তবে এর মধ্যেই নতুন খবর অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সম্প্রচার নিয়ে।





মূলত ব্যাংকিং জটিলতার কারণেই বিশ্বকাপের সম্প্রচার নিয়ে বিপদে পড়তে হচ্ছে বাংলাদেশী টিভি চ্যানেলগুলিকে। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, টাকা পাঠানোর ছাড়পত্র না পাওয়ায় এই সংকট তৈরি হয়েছে।

বৈশ্বিক ডলার সংকট কাটিয়ে উঠতে দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের দেওয়া সব শর্ত পূরণ করেও বাংলাদেশ ব্যাংকের ছাড়পত্র বা ‘লেটার অব ইন্টেন্ট’ না পাওয়ায় খেলার সম্প্রচারস্বত্ব কিনতে পারছে না দেশীয় প্রতিষ্ঠানগুলো। এই অবস্থায় বিশ্বকাপ সম্প্রচারে কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে দেশীয় টিভি চ্যানেলগুলোও।

এর ফলে বিশ্বকাপের রোমাঞ্চ থেকে বঞ্চিত হতে পারেন দেশের কোটি ক্রিকেট ভক্ত। তবে এর ফলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে বাংলাদেশ সরকারই। বিশ্ব-ক্রিকেটের বড় বড় টুর্নামেন্টের সম্প্রচার বাজার থেকে প্রতিবছর কোটি কোটি টাকা রাজস্ব পায় সরকার। গত দুই বছরে এই রাজস্ব আয় বেড়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের অভ্যন্তরীণ সূত্র অনুসারে, ২০২০-২১ এবং ২০২১-২০২২ অর্থবছরে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ এর মতো আন্তর্জাতিক খেলা সম্প্রচারের জন্য বাংলাদেশ সরকারকে কয়েক কোটি টাকা রাজস্ব দিয়েছে স্টার স্পোর্টস এবং সনি পিকচার্স নেটওয়ার্ক।





এই কারণে এখনো এশিয়া কাপের সম্প্রচারস্বত্বের বকেয়া বিল পরিশোধ করতে পারেনি বাংলাদেশি টিভি চ্যানেলগুলি। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমতি না পাবার কারণে আটকে আছে বকেয়া বিল পরিশোধ। তাই দ্রুত এই সমস্যার সমাধান না হলে অনিশ্চয়তার মুখে পড়ে যাবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সরাসরি সম্প্রচার।