টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ১৫শ রানের রেকর্ড গড়া ৪৬ ব্যাটসম্যানের মধ্যে সবচেয়ে ‘বাজে’ ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম

বাংলাদেশ টেস্ট এবং ওয়ানডে দলের রান মেশিন বলা হয় মুশফিকুর রহিমকে। টেস্ট এবং ওয়ানডে দলের তিনি যতটাই না গুরুত্বপূর্ণ ব্যাটসম্যান টি-টোয়েন্টির ক্ষেত্রে অনেকটাই বিবর্ণ মুশফিকুর রহিম। ‌এই মুহূর্তে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সবচেয়ে অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানদের মধ্যে একজন মুশফিক।





কিন্তু তার টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট ক্যারিয়ারের দিকে তাকালে হয় ত সেটি ভুলে যেতে হবে। বিগত কয়েক মাস ধরেই মুশফিকুর রহিমের টি-টোয়েন্টি ব্যাটিং নিয়ে হচ্ছে নানা আলোচনা এবং সমালোচনা। এই ফরম্যাটে মোটেও রান পাচ্ছেন না মুশফিকুর রহিম।

ওয়ানডে এবং টেস্ট ক্রিকেটে তার একাধিক ঝলমলে ইনিংস থাকলেও টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে একমাত্র শ্রীলঙ্কা মাটিতে নিদ্রাহাঁস টি-টোয়েন্টি ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টে দুটি ইনিংস ছাড়া বলার মত আর কোন পারফরম্যান্স নেই মুশফিকুর রহিমের ব্যাট থেকে।

সদ্য শেষ হওয়া এশিয়া কাপে আফগানিস্তানের বিপক্ষে করেছেন ১ এবং শ্রীলংকার বিপক্ষে করেছেন ৪ রান। তবে শ্রীলংকার বিপক্ষে ব্যর্থতা দিনেও ব্যাট হাতে একটি মাইলফলক স্পর্শ করেছেন মুশফিকুর রহিম।

বাংলাদেশের চতুর্থ ও বিশ্বের ৪৬তম ক্রিকেটার হিসেবে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে ১৫শ রানের মাইল ফলক স্পর্শ করেছেন মুশফিক। তবে ইতিহাস গড়লেও এটা নিয়ে খুশি হওয়ার মোট উপায় নেই মুশফিকুর রহিমের। কেননা এই ফরম্যাটে অন্তত ১৫শ রান করা বিশ্বের ৪৬ জন ব্যাটারের মধ্যে সবচেয়ে বাজে অবস্থা মুশফিকেরই।

এখন পর্যন্ত টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট ক্যারিয়ারে ১০২ ম্যাচে পুরোপুরি ১৫০০ রান করেছেন মুশফিকুর রহিম। ব্যাটিংগড় ১৯.৪৮। স্ট্রাইক রেট ১১৫.০৪। সব জায়গাতেই পিছিয়ে রয়েছে মুশফিক। মুশফিকের আগে থাকা বাকি ৪৫ ব্যাটারের সবাই অন্তত ২০ গড়ে রান করেছেন। এছাড়াও ১৫শ রান করা ব্যাটারদের মধ্যে মুশফিকের স্ট্রাইকরেটও সবচেয়ে কম।





তিনি ১০২ ম্যাচের ক্যারিয়ারে ১৯.৪৮ গড়ে ১৫শ রান করেছেন মাত্র ১১৫.০৩ স্ট্রাইকরেটে। তার চেয়ে কম রেটে ব্যাটিং করেননি আর কোনো ব্যাটার। অবশ্য স্ট্রাইকরেট কম থাকার দোষে মুশফিক একাই দুষ্ট নন, বাংলাদেশের সব ব্যাটারেরই আছে এই সমস্যা।