এশিয়া কাপে বাংলাদেশের লক্ষ্য টানা তৃতীয়বারের মতো ফাইনাল

এশিয়া কাপের এবারের আসরে বাংলাদেশের লক্ষ্য কি?আগামী ২৭ আগস্ট থেকে শুরু হবে এশিয়া কাপের ১৫ তম আসর। এখন পর্যন্ত এশিয়া কাপে মোট সাতবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ভারত। পাঁচবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছে শ্রীলংকা। এবং দুইবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছে পাকিস্তান। তবে এশিয়া কাপে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সফল্য ফাইনালে খেলা।





এখন পর্যন্ত এশিয়া কাপে তিনবার ফাইনাল খেলেছে বাংলাদেশ। ২০১২ সালে পাকিস্তানের কাছে মাত্র ২ রানে হেরে স্বপ্নভঙ্গ হয় বাংলাদেশের। এরপর ২০১৬ এবং ২০১৮ সালে দুইবার ফাইনালে উঠলেও ভারতের কাছে জিততে পারেনি টাইগাররা। সর্বশেষ চার আসরের মধ্যে তিনবার ফাইনাল খেলেছে বাংলাদেশ।

তবে এবারও বাংলাদেশের লক্ষ্য এশিয়া কাপের ফাইনালে খেলা। যদিও পারফরম্যান্সের বিবেচনায় বলা যায় সেটি বেশ কঠিন তবে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের টিম ডিরেক্টর খালেদা মাহমুদ সুজনের বিশ্বাস এশিয়া কাপের এবারের আসরে ফাইনাল খেলবে বাংলাদেশ। মিরপুরে আজও সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে খালেদ মাহমুদ বলেন,

“এশিয়া কাপের দ্বিতীয় পর্বে যাওয়া নিয়ে অনেকের মধ্যেই প্রশ্ন, যেহেতু আমরা এই ফরম্যাটে ভালো করছি না। কিন্তু আমি বিশ্বাস করি, আমরা সেখানে ভালো করতে পারব। এর আগেও বাংলাদেশ এশিয়া কাপের ফাইনাল খেলেছে। ফরম্যাট ৫০ ওভার হোক বা টি-টোয়েন্টি আমরা ফাইনালটা অবশ্যই খেলতে চাই। আমরা চাই প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে, ভালো ক্রিকেট খেলতে।”

বলতে গেলে এশিয়া কাপের সহজ গ্রুপেই রয়েছে বাংলাদেশ। তার কারণ এই মুহূর্তে ভারত পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলার থেকে আফগানিস্তান এবং শ্রীলংকার বিপক্ষে খেলাই ভালো। তাই এই দুই দলকে হারিয়ে সুপার ফোরে উঠতে হবে বাংলাদেশকে। সুপার ফোর থেকে পয়েন্ট তালিকার সেরা দুই দল খেলবে ফাইনাল।

বাংলাদেশের জন্য কাজটা কঠিন। তবে অসম্ভব নয় মোটেও। এর আগেও আফগানিস্তান এবং শ্রীলঙ্কাকে একাধিকবার হারিয়েছে বাংলাদেশ। এছাড়াও গত দুই আসরের এশিয়া কাপে পাকিস্তানকে হারিয়ে ফাইনালে জায়গা করে নিয়েছিল টাইগাররা।





“তাই এশিয়া কাপে যদি ব্যাটসম্যানরা তাদের এই স্ট্রাইক রেট ঠিক রাখতে পারে তাহলে ফাইনালে ওঠা সম্ভব বলে জানিয়েছেন খালেদ মাহমুদ সুজন। তিনি আরো বলেন, “১০৬-১১০ স্ট্রাইক রেটে ব্যাট করে আপনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট জিততে পারবেন না। আপনার ১৪০-৫০ এ ব্যাট করতে হবে। এখন ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলতে হবে। এছাড়া কোনো বিকল্প নেই। নইলে আপনি সার্ভাইভ করতে পারবেন না।”