সাদা বলের ক্রিকেটে আমরা একটি প্রতিযোগী দল, আমি নিশ্চিত এটি প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক সিরিজ হবে : সাকিব

টেস্ট ক্রিকেটে যে এখনো বাংলাদেশে দল অনেক দুর্বল তারা আরেকবার প্রমাণ হলো ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজে।ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হয়েছে বাংলাদেশ। সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচে চতুর্থ দিনে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে মাত্র ১৩ রানের টার্গেট দেয় বাংলাদেশ। এই রান খুব সহজেই ১০ উইকেটে তুলে নেয় ক্যারিবিয়ানরা।





ইতিমধ্যে ব্যাটিং ব্যর্থতার কারণে অধিনায়কত্ব হারিয়ে টেস্ট দলের একাদশ থেকে বাদ পড়েছেন মমিনুল হক। এছাড়াও ভালো ফর্মে নেই মাহমুদুল হাসান জয়, নাজমুল হোসেন শান্ত সহ একাধিক ব্যাটসম্যান। তবে ব্যাটসম্যানদের নিয়ে কোন চিন্তার কারণ নেই বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান।

সেই সাথে তিনি জানিয়েছেন রঙিন পোশাকে ঘুরে দাঁড়াবে বাংলাদেশ। গতকাল ম্যাচ পরবর্তী পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে সাকিব আল হাসান বলেন,

“আমরা সবসময় অনুভব করেছি যে টেস্ট ফরম্যাট আমাদের জন্য সবসময় কঠিন হতে চলেছে। দীর্ঘ বিরতির পর আমরা ঘরের বাইরের মাঠে খেলতে যাচ্ছি। আমি ব্যাটিং নিয়ে চিন্তিত নই। আমাদের মানসিকভাবে শক্ত হতে হবে। গত ৩-৪ বছরে আমরা সবচেয়ে বেশি উন্নতি করেছি। ম্যাচ জিততে হলে দল হিসেবে খেলতে হবে”।

“পুরো টেস্ট সিরিজ জুড়ে, বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা আবার আত্মসমর্পণ করেছে, তাদের উইকেট বিলিয়ে দেয়। বাংলাদেশ দলের ম্যানেজমেন্ট তার প্লানে অনেক কিছু আছে, বিশেষ করে ব্যাটিং বিভাগ তাদের চলমান ব্যাটিং সমস্যার কারণে”।

“উভয় টেস্ট ম্যাচেই ব্যাটসম্যানদের অধৈর্যতা এবং মেজাজ উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলেছিল। অন্যদিকে, স্কোরবোর্ডে তাদের প্রচেষ্টা সঠিকভাবে প্রতিফলিত না হওয়া সত্ত্বেও বোলাররা বীরত্বের সাথে লড়াই করেছিল”।

দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ শেষে এবার তিনটি টি-টোয়েন্টি এবং তিনটি ওয়ানডে ম্যাচ খেলবে দুই দল। টেস্ট ক্রিকেটে বাংলাদেশের দুর্বলতা থাকলেও রঙিন পোশাকে ভালো খেলে টাইগাররা। যদিও ওয়ানডের তুলনায় টি-টোয়েন্টিতে এখনো ধারাবাহিক করে উঠতে পারেনি বাংলাদেশ।





তবে সাকিবের জানালেন রঙিন পোশাকে ঘুরে দাঁড়াবে বাংলাদেশ। “সাদা বলের ক্রিকেটে আমরা একটি প্রতিযোগী দল এবং আমি নিশ্চিত এটি একটি প্রতিযোগিতামূলক সিরিজ হবে”।-বলেন সাকিব। আগামী ২ জুলাই থেকে শুরু হবে টি-টোয়েন্টি সিরিজ।