ডেভিড মালানের ছক্কায় পাড়ার ক্রিকেটের মত বাগানে বল খুঁজতে ব্যস্ত নেদারল্যান্ডের ক্রিকেটাররা

ক্রিকেট বিশ্বে আজও নতুন আরও একটি বিশ্বরেকর্ড গড়েছেন ইংল্যান্ড। যদিও তারা ভেঙেছে নিজেদের আগের বিশ্ব রেকর্ড। নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের প্রথমটিতে ৪৯৮ রান করে এই রেকর্ড গড়ে তারা। এই ম্যাচে সেঞ্চুরি করেছেন ফিলিপ সল্ট, ডেভিড মালান ও ডেভিড মরগ্যান।





তবে সেই বিশ্ব রেকর্ড ছাপিয়ে গেছে মাঠের বাইরে আরও একটি ঘটনাকে কেন্দ্র করে। অন্য দেশগুলোর মতো নেদারল্যান্ডের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট মাঠ গুলি একটু অন্যরকম। মাঠের পাশেই রয়েছে ছোট ছোট অনেক ঝোপঝাড়।

ম্যাচে চলাকালীন সময় ডেভিড মালানে একটি ছক্কা গিয়ে পড়ে মাঠের বাইরে। বল খুঁজে না পাওয়া সেখানে বল খুঁজতে যান নেদারল্যান্ডের ফিল্ডাররা। দেখা যায় পাড়ায় ক্রিকেটারদের মত মজা করে বল খুঁজছেন তারা।

ঘরের মাঠে টস জিতে বোলিং করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল নেদারল্যান্ড। ১ রানের মাথায় জেসন রয়ের উইকেট নিয়ে ভালো সূচনাই করে দলটি। তবে এরপরই ডাচ বোলারদের ওপর রোলার কোস্টার বইয়ে দিতে শুরু করেন ইংলিশ ব্যাটাররা। মাত্র ১৬৯ বলে ২২২ রানের জুটি গড়েন সল্ট ও মালান। ২২৩ রানের মাথায় আউট হয়ে যান সল্ট। এরপর মাঠে নামেন জশ বাটলার।

বাটলার মাঠে নামার পর রান তোলার গতি আরও বেড়ে যায়। ডাচ বোলারদের বল একের পর এক আছড়ে ফেলেন গ্যালারিতে। মালান ও বাটলার মিলে মাত্র ৮৯ বলে গড়েন ১৮৪ রানের জুটি। ৪০৭ রানের মাথায় বিদায় নেন মালান। একই রানে ‘০’ রান করে ফিরে যান অধিনায়ক এউইন মরগ্যানও।

এরপর ইংল্যান্ড ব্যাটাররা যেন টর্নেডো বইয়ে দেয়া শুরু করেন নেদারল্যান্ডসের বোলারদের ওপর। বাটলারের সাথে চার ছক্কার উৎসবে যোগ দেন এবার হার্ডহিটার লিয়াম লিভিংস্টোন। দুজনে মিলে মাত্র ৩২ বলে গড়েন ৯১ রানের জুটি। শেষ পর্যন্ত বাটলার ৭০ বলে ১৬২ রানে ও লিভিংস্টোন ২২ বলে ৬৩ রানে অপরাজিত থাকেন।





এর আগে, ২০১৮ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৪৮১ রান করেছিল ইংল্যান্ড। ওয়ানডেতে সর্বোচ্চ রান করার তৃতীয় স্থানেও ইংল্যান্ড। ২০১৬ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৪৪৪ রান করেছিল দলটি।