পারফর্মেন্স নয়! অন্য কারণে আমাকে দল থেকে বাদ দেয়া হয়েছে : আবু জাহেদ রাহি

গত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর থেকেই জাতীয় দলের বাইরে রয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা ফাস্ট বোলার রুবেল হোসেন। যদিও পারফরমেন্সের কারণে দল থেকে বাদ পড়েননি তিনি। তবে তার মত এবার জাতীয় দল থেকে বাদ পড়লেন আরেক ফাস্ট বোলার আবু জাহেদ রাহি।





মোস্তাফিজুর রহমান টেস্ট ক্রিকেট থেকে মুখ ফিরিয়ে নেওয়ার কারণে বাংলাদেশ টেস্ট দলে নিয়মিত সদস্য হয়ে ওঠেন আবু জাহেদ রাহি। সর্বশেষ পাকিস্তানের বিপক্ষে ঘরের মাঠে টেস্ট সিরিজে ছিলেন আবু জাহেদ রাহি। দুই টেস্ট মিলে তিনি নিয়েছিলেন ১০ টি উইকেট।

এরপর নিউজিল্যান্ড এবং দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজের দলে থাকলেও একাদশে সুযোগ পাননি তিনি। তবে এবার ঘরের মাঠের শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজের আগে দল থেকে বাদ পড়েছেন জাতীয় দলের এই ফাস্ট বোলার।

বল হাতে দুই দিকে সুইং করানোর সক্ষমতার কারণে জাতীয় দলে নিজের জায়গা ধরে রেখেছিলেন এই পেসার। কিন্তু এরপরেও এভাবে বাদ পড়ায় হতাশ এই পেসার। দল থেকে বাদ পড়ার পর রাহি জানান, পারফর্মেন্সের জন্য নয়, অন্য কিছুর জন্য জাতীয় দল থেকে বাদ পড়েছেন তিনি।

রাহি বলেন, “আমি আমার এই সামর্থ্য দিয়ে মিরপুরে শেষ দুই টেস্টে ১০ উইকেট নিয়েছিলাম। আমি মনে করি না, আমার পেস বোলিং এখানে কোনো ইস্যু। এখানে অন্য কিছু থাকতে পারে।”

জাতীয় দলের হয়ে সাদা পোশাকে ১৩ টেস্ট খেলেছেন আবু জায়েদ রাহি। এই সময়ে তিনি শিকার করেছেন ৩০ উইকেট। তিনি বলেন,”আমি ১৩ ম্যাচে ৩৪ (৩০) উইকেট নিয়েছি। আমি বুঝতেছি না কেন হঠাৎ আমাকে জাতীয় দলকে বাদ দেওয়া হলো। এখন শুধু গতি নয়,বোলিংয়ে সুইংয়েও দরকার হয়”।

“কেপটাউনে ক্যাম্প করার সময় আমাদের একজন পেস বোলিং কোচ বলেছিলেন, বলের গতি বাড়ানোর দরকার নাই। যদি বলে সুইং করাতে পারি, তাহলে ১৩০-এ বল করলেই হবে। এটা ১৪০ গতির মতোই কার্যকর হবে।”

২০১৮ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রাখেন আবু জায়েদ রাহি। এবার সেই ক্যারিবিয়ান সফরে লক্ষ্য রেখেই নিজেকে প্রস্তুত করতে চান।





বলেন, “ওয়েস্ট ইন্ডিজে ডিউক বলে খেলা হবে, সুইং থাকবে। আশা করি সেখানে সুযোগ পাব। আর যদি ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে না যাওয়া হয়, তাহলে ভিন্ন কিছু চিন্তা করতে হবে। তখন আরও চেষ্টা করতে হবে। আরও পরিশ্রম করতে হবে।”