চমকে দিলেন ইমরুল কায়েস। ‌বিপিএলের পর এবার ডিপিএলেও শিরোপা ঘরে তুললেন ইমরুল কায়েস

দেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে জমজমাট পূর্ণ দুইটি টুর্নামেন্টের শিরোপা ঘরে তুললেন ইমরুল কায়েস। বছরের শুরুতেই বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। ওই দলের অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেছিলেন ইমরুল কায়েস।





এবার ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়ন হয়েছে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব। সেখানেও অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করেছেন ইমরুল কায়েস।

মঙ্গলবার আবাহনী লিমিটেডের দেওয়া ২৩০ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে কাজী নুরুল হাসান সোহানের অপরাজিত ৮১ রানের ইনিংসে ভর করে এক ম্যাচ হাতে রেখেই ৪ উইকেটের জয়ে প্রথমবারের মতো শিরোপা জয়ের উল্লাসে মেতে উঠে দলটা।

ফলে শিরোপা জয়ের অনেক কাছে গিয়েও জেতা হলো না লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে ছোট লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে টপ ও মিডল অর্ডারের পাঁচ ব্যাটারকে হারায় ৭৮ রানে। ওপেনার সাইফ হাসানকে ১৫ রানে ফেরান সাইফউদ্দিন।

আরেক ওপেনার সৈকত আলীকেও (১৫) ফেরান সাইফউদ্দিন। দলের অন্যতম নির্ভরযোগ্য ব্যাটার মুশফিকুর রহিমও হতাশ করেন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচটিতে। ১৬ রান করে এলবিডব্লু হয়ে সাজঘরে ফেরেন তানভির ইসলামের বলে। মোসাদ্দেক হোসেনের বলে ক্যাচ দেন নাঈম শেখের হাতে।

অধিনায়ক ইমরুল কায়েস ১৫ রানে ফেরার পর রবিউল ইসলাম রবি ফেরেন ৩ রান করে। চাপে পড়া দলের হাল ধরেন নুরুল হাসান সোহান। পারভেজ রসুলকে সঙ্গে নিয়ে সোহান তুলে নেন অর্ধশতক। ৭২ রানের জুটি ভাঙেন নাজমুল হোসেন শান্ত, সোহানকে দারুণ সঙ্গ দেওয়া রসুল ফেরেন ৩৩ (৪০) রানে।





দলীয় ১৫০ রানে রসুলের বিদায়ের পর বাকি ৮০ রান তুলতে বেশ কঠিন পথ পাড়ি দিতে হয়েছে সোহান-জিয়াউর রহমানকে। তবে কঠিন পথ মাড়িয়ে দুজনের ৮২ রানের জুটিতে ৪৭ ওভারে জয় তুলে নেয় শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব। সোহান অপরাজিত থেকেছেন ৮১ (৮১) রানে, জিয়া ৩৯ (২৬) রানে।