বাংলাদেশ টেস্ট ক্রিকেট ইতিহাসে এশিয়ার বাইরে প্রথমবারের মতো টেস্ট ক্রিকেটে ইতিহাস গড়লো বাংলাদেশ

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচে দাপট দেখাচ্ছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। গতকাল স্বপ্নের মতো একটি দিন পার করার পর আজও ব্যাট হাতে দুর্দান্ত করে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। সেই সাথে এশিয়ার বাইরে প্রথমবারের মতো ইতিহাস গড়ে টাইগাররা।





এশিয়ার বাইরে প্রথমবার প্রথম ইনিংসে পরে ব্যাটিং করে লিড পেল বাংলাদেশ। মুমিনুলের চোয়ালবদ্ধ ব্যাটিং ও লিটনের ধ্রুপদী ইনিংসে অতি সহজেই বাংলাদেশ লিডে গেল। গতকাল ২ উইকেট হারিয়ে ১৭৫ রানে আজ তৃতীয় দিনের খেলা শুরু করেন দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যান মাহমুদুল হাসান জয় এবং অধিনায়ক মোমিনুল হক।

তবে উইকেটে বেশি সময় টিকতে পারেননি মাহমুদুল হাসান জয়। আজ মাত্র ৮ রান যোগ করেন তিনি। ৭৮ রান করে ওয়াগনারের বলে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি। তবে আজ ব্যাট হাতে রান করতে পারেননি মুশফিকুর রহিম। ট্রেন্ট বোল্টের সোজা বলে ১২ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি।

তবে একাধিকবার জীবন পেয়ে দুর্দান্ত খেলছে অধিনায়ক মোমিনুল হক। একবার তো তিনি আউট হয়ে গিয়েছিলেন। ৮ রানে পেসার জেমিনসন মুমিনুলের ফিরতি ক্যাচ ছাড়েন। ৯ রানে ওয়াগনারের ইনসুইঙ্গারে মুমিনুল উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়েছিলেন। টম ব্লান্ডেল ক্যাচ লুফে নেন অতি সহজেই। আম্পায়ারও আউট দেন।

কিন্তু টিভি রিপ্লেতে দেখা যায়, বলটা নো ছিল! নিশ্চিত আউট হয়েও মুমিনুল আরেকটি জীবন পেলেন। তার সাথে যোগ দেন লিটন দাস। খুব ভালোভাবেই বাংলাদেশ দলকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন এ দুই ব্যাটসম্যান। কিন্তু দুজনই সেঞ্চুরি বঞ্চিত হয়েছেন।

পঞ্চম উইকেটে ৩১৭ বলে ১৫৮ রানের জুটি গড়েন মুমিনুল ও লিটন। ক্যারিয়ারের সবচেয়ে ধীর গতির ইনিংস খেলে মুমিনুল ফেরেন সাজঘরে। ২৪৪ বলে সাজান ৮৮ রানের ইনিংসটি। যেখানে বাউন্ডারি মেরেছেন মাত্র ১২টি। সঙ্গী হারানোর দুই ওভার পর লিটনও একই পথ ধরেন। বোল্টের বেরিয়ে যাওয়া বল কাট করতে গিয়ে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন ৮৬ রানে।





১৭৭ বলে ১০ বাউন্ডারিতে চোখ ধাঁধানো ইনিংসটি সাজিয়েছিলেন তিনি। তবে শেষ বিকালে আর কোনো অঘটন ঘটছে দেননি মেহেদী হাসান মিরাজ এবং ইয়াসির আলী রাব্বি। তৃতীয় দিন শেষে ৬ উইকেটে ৪০১ করেছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ এগিয়ে রয়েছে ৭৩ রানে। ইয়াসির আলী ১১ এবং মেহেদী হাসান মিরাজ ২০ রান করে অপরাজিত রয়েছেন।