প্রাইম ব্যাংকে একাই হারিয়ে দিলেন শামীম পাটোয়ারী। অবিশ্বাস্য হাফ সেঞ্চুরিতে প্রাইম ব্যাংকে ৫ উইকেটে হারিয়েছে প্রাইম দোলেশ্বর।

শামীম পাটোয়ারী দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে প্রাইম ব্যাংকে ৫ উইকেটে হারিয়েছে প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টিং ক্লাব। সুপার লিগের আজ আগে ব্যাট করে প্রাইম দোলেশ্বরকে ১২৭ রানের টার্গেটে দেয় প্রাইম ব্যাংক। জবাবে ব্যাট করতে নেমে শামীম পাটোয়ারী অপরাজিত ৫২ রানে ৫ উইকেটে জয় লাভ করেছে প্রাইম দোলেশ্বর।





টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো করতে পারিনি প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবের টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানরা। একমাত্র রনি তালুকদার এবং নাহিদুল ইসলাম ছাড়া আর কোন ব্যাটসম্যান দুই অঙ্কের ঘরে পৌঁছাতে পারিনি। শুরুতেই ৮ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন ওপেনার ব্যাটসম্যান রুবেল মিয়া। এরপর অধিনায়ক আনামুল হক বিজয় ১, মোহাম্মদ মিঠুন ১ এবং রকিবুল হাসান ৬ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন।

এরপর নাহিদুল ইসলামকে সাথে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন রনি তালুকদার। ৪১ বলে ৮টি চার এবং একটি ছক্কা হাঁকিয়ে ৫৯ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন রনি তালুকদার। এরপর ২৭ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন নাহিদুল ইসলাম। প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টিং ক্লাবের হয়ে শফিকুল ইসলাম নেন চারটি উইকেট। এছাড়াও কামরুল ইসলাম রাব্বি ১০ রানের বিনিময়ে নেন ৩ উইকেট।

১২৭ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টিং ক্লাবকে চেপে ধরে প্রাইম ব্যাংকের বোলাররা। দলীয় ১২ রানের মধ্যে দুই ওপেনার ইমরানুজ্জামান এবং তৌকির খানকে প্যাভিলিয়নে ফেরান শরিফুল ইসলাম এবং রুবেল হোসেন। এরপর ফজলে মাহমুদকে সাথে নিয়ে চাপ সামাল দেন সাইফ হাসান।





১২ বলে চারটি বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ২০ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন ফজলে মাহমুদ। তবে এরপর মার্শাল আইয়ুবের ধীরগতি রানের কারণে চাপে পড়ে প্রাইম দোলেশ্বর। ২২ বলে মাত্র ১৩ রান দান করেন তিনি। তবে প্রাইম দোলেশ্বরকে আশার আলো দেখান শামীম হোসেন পাটোয়ারী। দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে যান একাই। ২৮ বলে ৪টি চার এবং তিনটি ছক্কা হাঁকিয়ে ৫২ রান করে অপরাজিত থাকেন শামীম হোসেন।