মোহাম্মদ আশরাফুলের বিধ্বংসী ৭২ রানের সুবাদে আবহনী লিমিটেডের বিপক্ষে ৬ উইকেটে জয়লাভ করলো শেখ জামাল

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে আবাহনী লিমিটেডকে ৬ উইকেটে হারিয়েছে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব। ‌ আগে ব্যাট করতে নেমে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব কে ১৭৪ রানের টার্গেটে দেয় আবাহনী লিমিটেড। জবাবে মোহাম্মদ আশরাফুলের ৭২ রানের সুবাদে ৬ উইকেটে জয় লাভ করেছে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব।





১৭৪ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ১২ রানের মধ্যে সৈকত আলী এবং ইমরুল কায়েসের উইকেট হারিয়ে বড় ধরনের চাপে পড়ে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব।

শুরুর দিকে সেই চাপ ভালোভাবেই সামাল দেন মোহাম্মদ আশরাফুল এবং নাসির হোসেন। দুইজন মিলে গড়ে তোলেন ৬৯ রানের পার্টনারশিপ। দলীয় ৮১ রানের মাথায় ২২ বলে চারটি চার এবং দুটি ছক্কার সাহায্যে ৩৪ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন নাসির হোসেন।

নাসির হোসেনের আউটের পর অধিনায়ক কাজী নুরুল হাসান সোহানকে সাথে নিয়ে আরো একটি বড় পার্টনারশিপ গড়ে তোলেন মোহাম্মদ আশরাফুল। দলীয় ১৪১ রানের মাথায় ২২ বলে একটি চার এবং তিনটি ছক্কার সাহায্যে ৩২ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন অধিনায়ক কাজী নুরুল হাসান সোহান।

তবে সোহান আউট হয়ে গেলেও দেখেশুনে খেলতে থাকেন মোহাম্মদ আশরাফুল। জিয়াউর রহমান কে সাথে নিয়ে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে নিয়ে যান মোহাম্মদ আশরাফুল। ৪৮ বলে ৮ টি চার এবং দুইটি ছক্কার সাহায্যে ৭২ রান করে অপরাজিত থাকেন মোহাম্মদ আশরাফুল। অন্যপ্রান্তের নয় বলে দুইটি চার এবং দুটি ছক্কার সাহায্যে ২২ রান করে অপরাজিত থাকেন জিয়াউর রহমান।

এর আগে টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের প্রথম ওভারেই প্যাভিলিয়নে ফেরেন টুর্নামেন্টের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান মুনিম শাহরিয়ার। শূন্য রানে তাকে প্যাভিলিয়নে ফেরেন এনামুল হক। তবে এরপর ৭৬ রানের পার্টনারশিপ গড়ে তোলেন মহাম্মদ নাইম এবং লিটন দাস। ২৮ বলে ৬টি বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ৪২ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন মোহাম্মদ নাঈম শেখ।





এরপর ৬ রান করে নাজমুল হোসেন শান্ত প্যাভিলিয়নে ফিরেলে মোসাদ্দেক হোসেন এবং আফিফ হোসেনের সাথে ছোট দুটি পার্টনারশিপ গড়েন লিটন দাস। অধিনায়ক মোসাদ্দেক ১৬ এবং আফিফ হোসেন ১৯ রান করে প্যাভিলিয়নের ফিরলেও ৭০ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন লিটন দাস। ৫১ বলে ৮টি চার এবং একটি ছক্কার সাহায্যে ৭০ করেন লিটন দাস।