বাংলাদেশ সিরিজ নিয়ে সরকারের সাথে বৈঠকে বসছে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বোর্ড। সঠিক সময়ে অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশ বনাম জিম্বাবুয়ের মধ্যকার পূর্ণাঙ্গ সিরিজ

সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী ২৯ জুন জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একটি টেস্ট তিনটি ওয়ানডে এবং তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলতে যাওয়ার কথা রয়েছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের। তবে হঠাৎ করেই জিম্বাবুয়েতে করোনার কারণে জিম্বাবুয়ে সরকার কঠোর লকডাউনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়ায় দেশটিতে সব ধরনের ক্রিকেটীয় কার্যক্রম স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে।

জিম্বাবুয়ে আর দক্ষিণ আফ্রিকা ‘এ’ দলের মধ্যে একটি সিরিজ চলছে। সোমবার জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটের ঘোষণায় সেই সিরিজটিও মাঝপথে স্থগিত হয়ে গেছে। যদিও জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বাংলাদেশ সিরিজ নিয়ে এখন পর্যন্ত কোনো ঘোষণা দেয়নি। বরং তারা সরকারের কাছে আবেদন জানিয়েছে, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং জিম্বাবুয়ে ‘এ’ দলের মধ্যকার চলতি চারদিনের ম্যাচটি যাতে শেষ করার অনুমতি দেয়া হয়।

একইসঙ্গে জিম্বাবুয়ের মাটিতে সব ধরনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সিরিজ চালু রাখার বিষয়ে সরকারের কাছে আবেদন জানিয়েছে দেশটির ক্রিকেট বোর্ড। সেই আবেদনে সরকার সাড়া দিলে বাংলাদেশের জিম্বাবুয়ে সফরে আর কোনো বাধা থাকবে না।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন জানিয়েছেন জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে তারা। এমনকি তারা জানিয়েছে সঠিক সময়ে সিরিজ আয়োজনে আশাবাদী জিম্বাবুয়ে। আজ সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন বলেন,

“করোনা সংক্রমনের কারণে ওদের দেশের বর্তমানে সব ধরনের স্পোর্টস বন্ধ রয়েছে। তবে তারা আমাদেরকে জানিয়েছে ক্রিকেট খেলা চালিয়ে যাওয়ার জন্য সরকারের সাথে আলোচনায় বসছে। আমরা তাদের সাথে যোগাযোগ রাখছি। তারা সিরিজ নিয়ে আত্মবিশ্বাসী। ’





৭ জুলাই টেস্ট দিয়ে শুরু হবে মাঠের লড়াই। এর আগে ৩ ও ৪ জুলাই দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। তিন ম্যাচের ওয়ানডে হবে ১৬, ১৮ ও ২০ জুলাই। হারারেতে হবে এই ম্যাচগুলো। একই ভেন্যুতে ২৩, ২৫ ও ২৭ জুলাই হবে টি-টোয়েন্টির লড়াই।