লোকে যাই বলুক না কেন, আমি আমার টিমমেটের পাশে আমি সবসময়ই থাকব : তামিম ইকবাল

নিঃসন্দেহে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেটের অন্যতম সেরা সফল ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম। ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি উইকেটকিপিং করেন তিনি। বর্তমানে বাংলাদেশ টেস্ট দলের উইকেটকিপিং ছেড়েছেন তিনি। তবে এখনো টি-টোয়েন্টি এবং ওয়ানডে দলের উইকেটকিপিং করছেন তিনি।





তবে কখনও ক্যাচ মিস, কখনও স্টাম্পিং আবার কখনো রান আউটের সুযোগ হাতছাড়া করেন তিনি। যার অধিকাংশ ভুলের প্রভাব দলের উপর পড়ে। অনেকেই এখন মুশফিকুর রহিমকে উইকেট কিপিং এ দেখতে চান না।

তাই বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের অধিনায়ক তামিম ইকবালের মতে, কিপিং ছাড়া বা না ছাড়া নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকার মুশফিকের আছে। বর্তমান সময়ে মুশফিকুর রহিমের উইকেটকিপিং নিয়ে নানা সমালোচনা চলছে।

তবে বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের অধিনায়ক তামিম ইকবালের মতে এই মুহূর্তে দেশের সেরা উইকেটকিপার রয়েছে তার দলে। বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তামিম ইকবাল বলেন, “আমার দলের সেরা কিপারই কিপিং করছে। পরিসংখ্যানে যদি যাই, সেরা কিপারই কিপিং করছে।”

“ আপনি বলতে পারেন লিটনের কথা বা মিঠুন, কিংবা সোহান। কিন্তু মুশফিক ১৫-১৬ বছর ধরে কিপিং করছে। সে কিপিং করবে নাকি করবে না, সেটা বিবেচনার ভার তারই। এই অধিকার সে অর্জন করেছে। আমি এটা অনুভব করি।”

এই মুহূর্তেই মুশফিকুর রহিমকে সরাতে চান না অধিনায়ক তামিম ইকবাল। তবে উইকেটকিপিংয়ের সিদ্ধান্তটা মুশফিকের ওপর ছেড়ে দিলেন তামিম। সেই সাথে সব সময় মুশফিকুর রহিমের সাথে থাকবেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

“ সে যদি কিপিং চালিয়ে যেতে চায়, অধিনায়ক হিসেবে আমি অবশ্যই তাকে সমর্থন দেব। কারণ, আমি জানি, সে কতটা কঠোর পরিশ্রম করে। হ্যাঁ, হয়তো দু-একটা ভুল হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু ভুল সবাই করি আমরা। আমি এমন নই যে তাকে গিয়ে বলব, ‘না, তোমাকে কিপিংয়ে চাই না।’ আমার সমর্থন তার থাকবে।”





“ তার পর সে করতে চায় নাকি চায় না, এটা তার ব্যাপার। কারণ আমি নিশ্চিত, আমি যেমন দলের ভালোর কথা ভাবছি, সেও সেটা ভাবে। তার যদি মনে হয়, তার চেয়ে ভালো কিপার দলে আছে, তাহলে সেটা তার সিদ্ধান্ত। যদি চালিয়ে যেতে চায়, সেখানেও পাশে থাকব। লোকে করতেই পারে (সমালোচনা), আমার নিয়ন্ত্রণে নেই। তবে আমার টিমমেটের পাশে আমি সবসময়ই থাকব।”