তাসকিন এবং খালেদ আহমেদকে আর্চার, স্টার্ক, রাবাদ, বুমরাহদের তালিকায় দেখতে চান প্রধান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো

বিসিবি প্রেসিডেন্ট কাপে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করেছে বাংলাদেশ দলের ফাস্ট বোলাররা। প্রতিটি ম্যাচেই নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে ফাস্ট বোলাররা। বিসিবি প্রেসিডেন্ট কাপে ফাস্ট বোলারদের এই উন্নতি চোখে পড়েছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের প্রধান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গোর।

তার বিশ্বাস বাংলাদেশে এখন বিশ্বমানের কয়েকজন ফাস্ট বোলার রয়েছে। যাদেরকে তিনি তুলনা করেছেন ইংল্যান্ড আর্চার, অস্ট্রেলিয়া স্টার্ক, দক্ষিণ আফ্রিকা রাবাদা, এবং ভারত বুমরাহকে। দলের প্রয়োজনে যখন উইকেটের প্রয়োজন হয় তখনই দলের সেরা ফাস্ট বোলারকে বোলিংয়ে আনেন অধিনায়ক।

বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দলই এমন একজন করে ফাস্ট বোলার রয়েছে। তবে বাংলাদেশে এমন ফাস্ট বোলার তৈরি করতে চান প্রধান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো। যারা যেকোনো মুহূর্তে দলের ভাগ্য পরিবর্তন করে দিতে পারে। সেই তালিকায় তিনি রেখেছেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের ফাস্ট বোলার তাসকিন আহমেদ এবং তরুণ ফাস্ট বোলার খালেদ আহমেদকে।

বর্তমানে দারুন ছন্দে আছে এই দুই ফাস্ট বোলার। বিসিবি প্রেসিডেন্ট কাপে দূর্দন্ত করেছেন তারা। বিশেষ করে তাসকিন আহমেদ। বিসিবি প্রেসিডেন্ট কাপের গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে একাই ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। যা নজরে পড়েছে প্রধান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো। বাংলাদেশের ফাস্ট বোলারদের এমন দারুন উন্নতিতে বাংলাদেশ জাতীয় দলের প্রধান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো বলেন

“ যখন থেকে আমি এখানে এসেছি, তখন থেকেই বলছি যে কিছু ভালো ফাস্ট বোলার গড়ে তোলা কতটা জরুরি। তাদেরকে যত বেশি সম্ভব খেলাতে হবে, বিশেষ করে দেশের বাইরে লড়াই করতে হলে। যা দেখেছি এখনও, আমি খুবই রোমাঞ্চিত। তাসকিন যেভাবে বল করছে, দেখুন তাকিয়ে।”

“ সব আন্তর্জাতিক দলেই সাদা বলের ক্রিকেটে এমন একজন ফাস্ট বোলার আছে, দলের উইকেট প্রয়োজন হলে যাকে আক্রমণে আনা হয়। ইংল্যান্ড আনে আর্চারকে, অস্ট্রেলিয়া স্টার্ককে, দক্ষিণ আফ্রিকা রাবাদাকে, ভারত বুমরাহকে।





এটা তাই দারুণ যে আমাদের হাতে এখন সেরকম বিকল্প আছে। খেলায় যখন হাড্ডাহাড্ডি লড়াই, কেউ এসে খুব গতিময় বল করতে পারে। তাসকিন বা খালেদরা বাউন্সারে ব্যাটসম্যানকে ভড়ক দিতে পারে। আমার জন্য এটা খুবই সন্তুষ্টির।”